বাবা প্রাণ ভিক্ষার আবেদন করেননি : হুম্মাম

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী প্রাণভিক্ষা চেয়ে আবেদন করেননি বলে দাবি করেছেন তারছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী। পিতার সঙ্গে দেখা করে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন দাবি করেন। এর আগে সাকার সঙ্গে শেষ দেখা করে পরিবারের সদস্যরা কারাগার থেকে বের হয়েছেন। শনিবার রাত ১০টা ৫৫ মিনিটে তারা কারাগার থেকে বের হন।

প্রাণভিক্ষার আবেদন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাকা চৌধুরীর ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী বলেন, ‘‘তার বাবা বলেছেন, ‘এসব বাজে কথা (প্রাণভিক্ষা) কে বলেছে? এ সরকারের সময় কত কাগজ বের হবে।’’

‘এ সরকার আমার বাবাকে নির্বাচনে হারাতে পারবে না জেনে কিছুক্ষণের মধ্যে তার জান নিয়ে নেবে’- এ কথা বলে তিনি গাড়িতে উঠে পড়েন।

সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ভাই জামাল উদ্দিন কাদের চৌধুরী বলেন, ‘আমার ভাই একটি কথাই বলেছেন, আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবর।’

সাকার স্ত্রী ফরহাত কাদের চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি বাকরুদ্ধ। আমি কোনো কথা বলতে পারব না। যা বলবে আমার ছেলেরাই বলবে।’

কারা কর্তৃপক্ষ দেখা করতে ডাকার পর রাত নয়টার পর সাকার স্ত্রী ফরহাত কাদের চৌধুরী, দুই ছেলে, ছেলেদের স্ত্রীসহ পরিবারের অন্তত ১৮ জন সদস্য কারাগারে ঢোকেন। রাত ১০টার ৫০ মিনিটের দিকে তাঁরা বেরিয়ে আসেন। এ সময় সবার চোখ ছিল অশ্রুসিক্ত।

ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, ‘আমার বাবা ন্যায়বিচার পাননি।’

প্রসঙ্গত, সালাউদ্দিন কাদেরের ৩৫ সদস্যের পরিবার রাত ৯টার দিকে কারাগারে প্রবেশ করেন। রাত সাড়ে ১০টার পর কারাগারে প্রবেশ করেন জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের পরিবার।

এর আগে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সঙ্গে দেখা করার জন্য পরিবারের সদস্যদের ডাকে কারা কর্তৃপক্ষ। শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাদের উভয়ের পরিবারকে ফোন করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আসতে বলা হয়। দুই দণ্ডপ্রাপ্তের ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী ও মাবরুর মুজাহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শেয়ার করুন