বিশ্ব ব্যাংককে ঋণের ব্যয় না বাড়ানোর প্রস্তাব অর্থমন্ত্রীর

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামীতে বিশ্ব ব্যাংকসহ অন্যান্য দাতা সংস্থার কাছ থেকে গৃহীত ঋণের ব্যয় বাড়বে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ২০১৮ সালের আগে ঋণের ব্যয় যাতে না বাড়ানো হয় সে জন্য বিশ্ব ব্যাংককে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বুধবার সন্ধ্যায় বিশ্ব ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট কেটি পিটারের সঙ্গে বৈঠকে তিনি এ প্রস্তাব দেন।

বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘গৃহীত ঋণের সার্ভিস চার্জ বাড়ানোর জন্য ইতোমধ্যে বিশ্ব ব্যাংক ও জাইকা তাগিদ দিয়েছে। বাংলাদেশ বিশ্ব ব্যাংকের মানদণ্ডে নিম্নমধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ায় দাতাগোষ্ঠী এ ধরনের প্রস্তাব দিয়েছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকে ঋণ গ্রহীতা হিসেবে বড় ক্লায়েন্ট। এ অবস্থায় ঋণের সার্ভিস চার্জ বাড়ানো হলে চলমান প্রকল্পগুলোর ব্যয় অনেক বেড়ে যাবে। ফলে সরকার অনেকটা চাপের মধ্যে পড়তে পারে। যার পরিপ্রেক্ষিতে আমি তাকে (কেটি পিটার) বর্তমানে সার্ভিস চার্জসহ যে সুদের হারে ঋণ দেওয়া হয় তা না বাড়িয়ে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বহাল রাখা যায় কিনা সেটি বিবেচনা করতে বলেছি। এ জন্য তাদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।’

এ সময় বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের আন্তঃনৌ-যোগাযোগ উন্নয়নসহ বিদ্যুৎ, জ্বালানি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বিশ্ব ব্যাংক বিনিয়োগে আগ্রহী।

এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে আন্তঃনৌ-যোগাযোগ বাড়ানোর লক্ষ্যে ইতোমধ্যে একটি প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয়েছে। একই সঙ্গে নদীগুলোর নাব্যতা ও ড্রেজিংয়ের উপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হবে।’

শেয়ার করুন