বাংলাদেশে পাচারের জন্য রক্ষিত বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-গোলাবারুদ মিজোরামে উদ্ধার

প্রকাশিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকার সীমান্তবর্তী ভারতের মিজোরাম রাজ্যের দুটি গ্রামে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে আসাম রাইফেলস। উদ্ধারকৃত অস্ত্র ও গোলাবারুদগুলোর মধ্যে রয়েছে, ১২টি ম্যাগাজিনসহ পাঁচটি একে-৪৭ ও তিনটি একে-৫৬ রাইফেল। ভারতের সীমান্তরক্ষী আধাসামরিক বাহিনী এই অভিযান চালিয়েছে বলে জানা গেছে।

এসব উদ্ধারকৃত অস্ত্র ও গোলাবারুদ মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে আসা হতে পারে বলে বলে মিজোরাম পুলিশ সন্দেহ করছে। মিজোরাম রাজ্যের সেরচিপ জেলার কেতুম ও খলেলুঙ গ্রাম থেকে শুক্রবার ভোরে এসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

এ সময় মিনচুঙ্গা (৫৫) ও ভেনপুইলালা (৩০) নামে দুই মিজো ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। ঊর্ধ্বতন পুলিশ ও গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন জেলার পুলিশ প্রধান লালরিংডিকা। বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী গ্রাম দু’টি মিজোরামের রাজধানী আইজল থেকে প্রায় ১২০ কিলোমিটার দক্ষিণে।

তিনি আরো জানান, উদ্ধারকৃত আগ্নেয়াস্ত্রের মধ্যে পাঁচটি একে-৪৭, তিনটি একে-৫৬ রাইফেলের পাশাপাশি একে সিরিজ রাইফেলের ১২টি ম্যাগাজিন পাওয়া যায়। আর অস্ত্রগুলো প্রতিবেশী বাংলাদেশে নেওয়া হচ্ছিল বলে তিনি ধারণা করছেন। গত ছয় মাসের মধ্যে সীমান্তরক্ষী বাহিনী আসাম রাইফেলসের হাতে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা বলে জানা গেছে। এর আগে মিয়ানমার সীমান্তবর্তী রাজ্যের চাম্পাই জেলা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি আটটি এম ৪রাইফেল উদ্ধার করে তারা। আসাম রাইফেলস নামে ভারতের এই সীমান্তরক্ষী বাহিনী মিয়ানমারের সঙ্গে থাকা দেশটির এক হাজার ৬৪৩কিলোমিটার সীমান্ত পাহারায় নিয়োজিত। ২০১৪ সালের মার্চে মিজোরামের রাজধানী আইজলের কাছের একটি গেস্ট হাউজ থেকে ৩১টি রাইফেল, একটি হালকা বন্দুক ও বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ উদ্ধার করে এই বাহিনীর সদস্যরা।

আর ২০১৪ সালের অগাস্টে দেশটির আরেক সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ চোরাকারবারীদের কাছ থেকে আটটি একে সিরিজের রাইফেল উদ্ধার করে। তখন স্থানীয় তিন চাকমার সঙ্গে দুই বাংলাদেশি চাকমাকেও গ্রেফতার করা হয়। এভাবে মিয়ানমার থেকে মিজোরাম হয়ে এসব অস্ত্রের চালান বাংলাদেশে পার্বত্য এলাকায় পাহাড়িদের মধ্যে বিবাদমান দুটি পক্ষ ইউপিডিএফ ও পাবর্ত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সদস্যদের কাছে যায় বলে ধারণা করা হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রামের চোরাই বাজার থেকে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী আরাকান আর্মি ও অনেক বিদ্রোহী রোহিঙ্গা গোষ্ঠীর পাশাপাশি বাংলাদেশি ধর্মীয় জঙ্গিরা এসব অস্ত্র পেয়ে থাকে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন