প্রথম প্রান্তিকে রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ৯.৫১ ভাগ

প্রকাশিত

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : প্র্রতিবেদক : ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) গত বছরের তুলনায় রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৯ দশমিক ৫১ শতাংশ। যদিও লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৫ হাজার ৭৯৮ কোটি টাকা ঘাটতি রয়েছে। এ সময় আদায় হয়েছে ৩০ হাজার ৯১০ কোটি টাকা।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের সাময়িক হিসাব অনুযায়ী, প্রথম প্রান্তিকে রাজস্বের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৬ হাজার ৭০৮ কোটি টাকা। এর বিপরীতে আদায় হয়েছে ৩০ হাজার ৯১০ কোটি টাকা। ঘাটতির পরিমাণ ৫ হাজার ৭৯৮ কোটি টাকা। তবে চূড়ান্ত হিসাবে রাজস্ব ঘাটতির পরিমাণ কমতে পারে।

১১ হাজার ৫৭৭ কোটি আয়কর আদায়ের লক্ষ্যের বিপরীতে আদায় হয়েছে ৯ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা। ঘাটতি রয়েছে ২ হাজার ২৬ কোটি টাকা। যদিও গত বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ৮০ শতাংশ।

অপরদিকে ভ্যাট আদায় হয়েছে ১১ হাজার ৪৯৯ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৩ হাজার ৯১৬ কোটি টাকা। ঘাটতি রয়েছে ২ হাজার ৪১৭ কোটি টাকা। যদিও গত বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১০ দশমিক ৪০ শতাংশ।

আমদানি শুল্কখাতে আদায় হয়েছে ৯ হাজার ৮৫৫ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১১ হাজার ২১৫ কোটি টাকা। গত বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তার মতে, প্রতিবারই অর্থবছরের শুরুতে রাজস্ব আদায়ের গতি শ্লথ থাকে। এই প্রবণতা ডিসেম্বর পর্যন্ত চলতে থাকে। এরপর গতি বাড়ে। সাধারণত আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি না হওয়ার কারণে রাজস্ব আহরণে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। এছাড়া স্থানীয় পর্যায়ে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) আদায়ের ক্ষেত্রেও বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে এক লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা, যা গত অর্থবছরের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বেশী। এর মধ্যে আয়কর খাতে ৬৫ হাজার ৯৩২ কোটি টাকা, ভ্যাট খাতে ৬৩ হাজার ৯০২ কোটি টাকা এবং শুল্কখাতে ৪৬ হাজার ৫৩৬ টাকা লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন