নিবন্ধনের আওতায় আসছে অনলাইন পত্রিকা

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত ও অপসাংবাদিকতা রোধে অনলাইন পত্রিকাগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনা হচ্ছে।

এ জন্য নির্ধারিত নিবন্ধন ফরম ও প্রত্যয়নপত্র বা হলফনামা পূরণ করে তথ্য অধিদফতরে জমা দিতে হবে। তথ্য অধিদফতর এগুলো যাচাই-বাছাই করে অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধন দেবে।

রবিবার এক তথ্য বিবরণীতে এ কথা জানানো হয়েছে। বর্তমানে চলমান সকল অনলাইন পত্রিকাগুলোকে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে আবেদন করতে হবে।

ফরম ও প্রত্যয়নপত্রের নমুনা তথ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইটে (www.pressinform.portal.gov.bd) পাওয়া যাবে। এ ছাড়া সাময়িকভাবে তথ্য অধিদফতরের প্রটোকল শাখা থেকেও তা সংগ্রহ করা যাবে।

এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শের জন্য তথ্য অধিদফতরের প্রটোকল শাখায় (ফোন নম্বর : ৯৫১৪০৬৫ অথবা ০১৭১৫২৫৫৭৬৫ নম্বরে) যোগাযোগ করা যাবে বলেও বিবরণীতে বলা হয়েছে।

তথ্য অধিদফতরের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা (প্রটোকল) শাহেনুর মিয়া বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয়ের উচ্চপর্যায়ের নির্দেশে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাতে অনলাইনের ক্ষেত্রে পেশাদারিত্বের বিকাশ ঘটে। যারা নতুন ব্যবস্থায় নিবন্ধন নেবে না আমরা পর্যায়ক্রমে তাদের এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড বাতিল করে দেব।’

এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দিতে নতুন বিধান আসছে

নিবন্ধন প্রক্রিয়ার পর এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দেওয়ার ক্ষেত্রে নতুন বিধান চালু করবে তথ্য অধিদফতর।

তথ্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে, পত্রিকার মতো বিভিন্ন শর্তসাপেক্ষে নির্ধারণ করা হবে কোন অনলাইন পত্রিকা কয়টি এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড পাবে।

এ জন্য অনলাইন পত্রিকার জনবল, নিজস্ব কন্টেন্টের পরিমাণ, এ্যালেক্সা র‌্যাঙ্কিং, গুগল এ্যানালিটিকস, ট্রেড লাইসেন্স ইত্যাদি বিষয় যাচাই করা হবে। এ ছাড়া সরকার নিয়মিত অফিস পরিদর্শনও করবে।

শাহেনুর মিয়া এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দিতে নতুন বিধান করা হচ্ছে জানিয়ে বলেন, ‘অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। তবে সেখানে সব কিছু স্পষ্ট করা থাকবে না। এ জন্য এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দিতে নতুন বিধান করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এর খসড়া করা হয়েছে। শীঘ্রই এটি চূড়ান্ত করা হবে।’

নিবন্ধন সম্পন্ন হওয়ার পর নতুন বিধানের ভিত্তিতে এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে বলেও জানান এ সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা।

তথ্য অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, বর্তমানে ১৩৮টি অনলাইন পত্রিকাকে এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দেওয়া হয়েছে। ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইনসহ এ্যাক্রেডিটেশন কার্ড দেওয়া মোট গণমাধ্যমের সংখ্যা প্রায় তিন হাজার।

বিধি-বিধানের ভিত্তিতে পরিচালিত হলে অনলাইন গণমাধ্যমগুলো সরকারি বিজ্ঞাপন পাবে বলে তথ্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে।

শেয়ার করুন