ধূমকেতুতে অ্যালকোহল আর চিনি!

প্রকাশিত

বিদেশ ডেস্ক : শুনতে অদ্ভুত লাগলেও সম্প্রতি মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, পানি আর অক্সিজেন ছাড়া প্রাণ সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় কার্বনের জটিল জৈব যৌগের অণু পাওয়া গেছে মহাকাশে। লাভজয় নামে একটি ধূমকেতু থেকে নির্গত গ্যাসে মিলেছে ইথাইল অ্যালকোহল আর চিনি। তার পরিমাণ এতটাই যে, তা দিয়ে নাকি প্রতি সেকেন্ডে কমপক্ষে ৫০০ বোতল ওয়াইন বানানো সম্ভব!

যুগান্তকারী এই আবিষ্কারের খবরটি শুক্রবার ‘সায়েন্স অ্যাডভান্সেস’ নামে একটি বিজ্ঞান জার্নালে প্রকাশ হয়েছে। গবেষণাটি হয়েছে স্পেনের সিয়েরা নেভাদায় ইনস্টিটিউট দ্য রেডিও-অ্যাস্ট্রোনমি মিলিমেট্রিকে। আর গবেষণা দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন নাসার প্যারিস অবজারভেটরির বিজ্ঞানী নিকোলাস বিভার।

বিষয়টি নিয়ে নাসা বলছে, ‘লাভজয় নামে ধূমকেতুটি গত জানুয়ারিতে আমাদের সোলার সিস্টেমে ঘুরে বেড়ানোর সময় তারা ছবি তুলতে সক্ষম হয়েছেন। এসময় তারা ধূমকেতুটি থেকে নির্গত গ্যাসে ‘সি২এইচ৫ওএইচ’ এবং ‘সিএইচ২ওএইচসিএইচও’ রাসায়নিকের খোঁজ পেয়েছেন। যা পৃথিবীতে অ্যালকোহল এবং চিনি হিসেবেই পরিচিত।’

বিষয়টি নিয়ে বিভার বলেন,‘আমরা দেখেছি লাভজয় নামে ধূমকেতু থেকে যে গ্যাস নির্গত হচ্ছে বিপুল পরিমাণে অ্যালকোহলের উপস্থিতি রয়েছে। তার পরিমাণ এতটাই বেশি যে তা দিয়ে প্রতি সেকেন্ডে কমপক্ষে ৫০০ বোতল ওয়াইন বানানো সম্ভব।’

বিজ্ঞান বলছে, এরপর মহাকাশে প্রোটিন, লিপিড বা ফ্যাটের সন্ধান মেলাটা খুব একটা কষ্টসাধ্য নাও হতে পারে। কারণ একটার পর একটা ইট বসিয়ে যেমন বাড়ি বানানো হয়, তেমনই ইথাইল অ্যালকোহল আর চিনি হলো জীবনের মূল উপাদান প্রোটিন, লিপিড বা ফ্যাটে পৌঁছনোর সূত্র। এর মাধ্যমেই কয়েকশ’ কোটি বছর আগে এই পৃথিবীতেও প্রাণের জন্ম হয়েছিল।

এর আগে গত বছর নভেম্বরে মানব সভ্যতার ইতিহাসে প্রথম পদার্পণ ঘটেছিল যে ধূমকেতুতে, সেই ‘৬৭পি/শ্যুরিমোভ-গেরাশিমেঙ্কো’তেও মিলেছিল কার্বনের জৈব যৌগের অণু। কিন্তু সেই অণুর চেয়ে অনেক বেশি জটিল ধূমকেতু লাভজয়ে হদিস মেলা জৈব যৌগের অণু। সূত্র: ডেইলি মেইল।

শেয়ার করুন