তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ড পার্কিংমুক্ত ঘোষণা

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক আনুষ্ঠানিকভাবে তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ড পার্কিংমুক্ত বলে ঘোষণা করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে তেজগাঁও শিল্প এলাকা, মহাখালী বাস টার্মিনাল ও তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ড সংলগ্ন সড়ক ‘পার্কিংমুক্ত ঘোষণা’ অনুষ্ঠানে তিনি এ ঘোষণা দেন।

আনিসুল হক বলেন, ‘সবাইকে নিয়ে কাজ করতে হবে। সবাইকে নিয়ে কাজ করে এ স্ট্যান্ডটি পার্কিংমুক্ত করা হয়েছে। আমার প্রচেষ্টা থাকবে সবাইকে নিয়ে ঢাকাকে যানজটমুক্ত রাখার চেষ্টা করা। গতকাল মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকাটিকে যানজটমুক্ত ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। আজ তেজগাঁওয়ে এ অঞ্চলটিকে পার্কিংমুক্ত ঘোষণা করা হলো।’

মেয়র বলেন, ‘রাজনৈতিক সদিচ্ছা দিয়ে সবকিছু করা যায়। প্রধানমন্ত্রী আমাকে রাজনৈতিক সদিচ্ছার শক্তি দিয়েছেন। যানজটমুক্ত, সবুজ ও নিরাপদ ঢাকা গড়ে তুলতে আমরা কাজ শুরু করেছি। আমরা আধুনিক ট্রাক স্ট্যান্ড তৈরির জন্য জমি খুঁজছি।’

তেজগাঁওয়ের রাস্তাটিকে পার্কিংমুক্ত করে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে মেয়র বলেন, ‘এই রাস্তাটি হবে উৎসবের রাস্তা। রাস্তার চারপাশের দেয়ালগুলো সাজানো হবে, ছবি থাকবে। এখানে বৈশাখী মেলা হবে।’

ট্রাক স্ট্যান্ডের জায়গা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আপাতত রেলের যে জায়গায় ট্রাক স্ট্যান্ড সরানো হয়েছে সেটি ইজারা দেওয়া হবে না। তবে যত দিন অত্যাধুনিক ট্রাক স্ট্যান্ড তৈরি না হচ্ছে তত দিন ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের স্ট্যান্ড হিসেবে এটি ব্যবহার করা যাবে। ট্রাক স্ট্যান্ডের স্থায়ী সমাধানের চেষ্টা চলছে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি বলেন, ‘আনিসুল হক তাঁর নির্বাচনী ওয়াদা পালন করছেন। শহরের যেখানে যানজট হবে তা মুক্ত করার জন্য ছুটে যাবেন তিনি। আধুনিক ট্রাক স্ট্যান্ড তৈরি করে এলাকার প্রত্যেকের স্বপ্ন পূরণ করবেন তিনি। প্রয়োজনের নিরিখে সবই করতে হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ঢাকা শহরকে যানজটমুক্ত করতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমরা ওয়াদাবদ্ধ। সে লক্ষ্যে কাজ চলছে। মেয়র যে অধ্যায়ের সূচনা করেছেন, যে ভূমিকা নিয়েছেন তার ফলে ট্রাক স্ট্যান্ডের এ এলাকাটি সুন্দর হয়েছে। তেজগাঁও এলাকাবাসী মেয়রকে সাহায্য করে যাবে।’

অনুষ্ঠানে জঙ্গি নিয়ে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান ও সাংসদ লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান প্রমুখ।

শেয়ার করুন