ঘাড়ের ওপর করা কোপেই মৃত্যু হয় দীপনের

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আরেফিন দীপনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর ফরেনসিক রিপোর্টে উঠে এসেছে এ তথ্য। দীপনের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে এ খুনের নির্মমতার বিবরণ দেন ডা. প্রদীপ বিশ্বাস।

তিনি জানান, ধারালো অস্ত্র দিয়ে দীপনের ঘাড়ের পেছনে একটি কোপ দেয়া হয় যার দৈর্ঘ্য ১১ ইঞ্চি, প্রস্থে দুই ইঞ্চি ও ৪ ইঞ্চি গভীর। এছাড়া মাথায়ও দু’টি কোপ ছিলো। কোপগুলো ৪ ইঞ্চি দৈর্ঘ্য ও প্রস্থে ১ ইঞ্চি করে। আর একটা ক্ষত ছিল ৫ ইঞ্চি গভীর ও আধা ইঞ্চি প্রস্থের।

মূলত স্পাইনাল কর্ড কেটে যাওয়ায় তিনি মারা গেছেন বলে জানান ডা. প্রদীপ বিশ্বাস। ব্রেন হ্যামারেজও হয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়াও তিনি জানান, দুপুরের খাবার খাওয়ার ১ থেকে দেড় ঘণ্টার মধ্যেই তার উপর হামলা হয়। খাওয়ার পর সে খাদ্য হজমও হয়নি।

এদিকে ফরেসনিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. কাজী মুহাম্মদ আবুশামা জানান, নিহত দীপন প্রতিহত করার কোনো সুযোগই পাননি।

উল্লেখ্য, শনিবার রাজধানীর শাহবাগে আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আরেফিন দীপনকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ প্রকাশনী থেকে ব্লগার অভিজিৎ রায়ের বই প্রকাশিত হয়েছিল।

একইদিনে লালমাটিয়ায় অভিজিতের বই প্রকাশকারী আরেক প্রকাশনা শুদ্ধস্বরের কার্যালয়েও হামলা চালায় দুর্বত্তরা। হামলায় শুদ্ধস্বরের প্রকাশক আহমেদুর রশীদ টুটুল, তারেক রহিম ও রনদীপম বসু গুরুতর আহত হয়।

এদিকে প্রকাশক ও ব্লগারদের হতাহতের ঘটনার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছে আনসার আল ইসলাম (আল-কায়েদা ভারতীয় উপমহাদেশ) নামের একটি জঙ্গি সংগঠন।

শেয়ার করুন