করোনা পরীক্ষার ফি কমানোর সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত

মুক্তমন ডেস্ক : সরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাস টেস্টের ফি কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

বুধবার (১৯ আগস্ট) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য মূল্য ২০০ টাকা থেকে ১০০ টাকা ও বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহের ফি ৫০০ টাকা থেকে কমিয়ে ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা কমে যাবার প্রশ্ন উঠছে। মানুষের আগ্রহ কমছে পরীক্ষায়, ঘরেই চিকিৎসা নিচ্ছেন, তাছাড়াও বন্যায় একটা কারণ। পরীক্ষার ফি এর কারণে অনেকের আগ্রহ কমেছে। যার কারণে ফি কমানো হলো। ল্যাবের সংখ্যা আপাতত বাড়ছে না। বিশ্বব্যাংকের অর্থ পেলে নতুন ল্যাব হবে।

তিনি আরও বলেন, এর ফলে পরীক্ষার হার বাড়বে বলে আশা করছি। সরকার চায় পরীক্ষা আরও বাড়ুক। বর্তমানে কিট ও ল্যাব যথেষ্ট পরিমাণে আছে। সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচারের দিন থেকে। আর কোভিড হাসপাতালের সংখ্যা কমানো হচ্ছে। যেহেতু সিট খালি থাকছে, আর কোভিড রোগীর সংখ্যাও কমছে। এছাড়া নন কোভিড রোগীর সংখ্যা অনেক। রোগীর হার অনুযায়ী কিছু কিছু কোভিড হাসপাতালকে পর্যায়ক্রমে নন কোভিড করা হবে।

পরীক্ষার ধরণ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, অ্যান্টিজেন নাকি অ্যান্টিবডি টেস্ট, এ নিয়ে মন্ত্রণালয় শিগগিরই সিদ্ধান্ত নেবে। আর ভ্যাক্সিনের ব্যাপারে সবদিকেই খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। সবচেয়ে ভালো যেটা, সেটাই আনা হবে।

সরকার বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষার সুযোগ দেয়ায় উপসর্গ ছাড়াই অধিকাংশ মানুষ করোনা পরীক্ষা করানোর সুযোগ গ্রহণ করেন- এমন দাবি করে কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার জন্য অপ্রয়োজনীয় টেস্ট পরিহার করার লক্ষ্যে, অর্থ বিভাগের গত ১৫ জুনের এক স্মারকের সম্মতির পরিপ্রেক্ষিতে আরটি-পিসিআর পরীক্ষার জন্য ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত ফি নির্ধারণ করা হয়। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা, দুস্থ ও গরিব রোগীদের চিকিৎসা ও রোগ নির্ণয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা সংক্রান্ত সরকারি আদেশ বহাল থাকবে বলেও জানানো হয়। হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের নমুনা পরীক্ষাতেও খরচ হবে ২০০ টাকা। সরকারি সব হাসপাতালের জন্য এ ফি প্রযোজ্য হবে।

শেয়ার করুন