অপকর্মের দায় তো আপনাদেরকেই বহন করতে হবে

প্রকাশিত

নীলিমা আক্তার লাইলি : আমরা বাংলাদেশের সকল নারী নেত্রীরাই লজ্জিত হই আপনাদের মত হাতে গোনা দুই চার জনের কর্মকান্ডে। প্রশ্ন বিদ্ধ হই নিজের বিবেকের কাছে। আপনাদের যদি এতই অভিনয়ের শখ ছিল তবে বাংলাদেশের যে কোন টিভি চ্যানেলে অভিনয় করলেই তো প্রশংসিত হতে পারতেন।

এই দুর্যোগ মোকাবেলা করতে যেখানে মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা দিনের রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। যেন এই করোনা নামক মহামারীতে মৃত্যু বা আক্রান্তের সংখ্যা কম হয় এবং এই মহামারী থেকে জাতি মুক্তি পেতে পারে। গরিব চাষিদের মুখে হাসি ফোটাতে ছাত্র লীগ, যুব লীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামীলীগের সকল নেত্রীবৃন্দদের নির্দেশ দিয়েছেন যার যার অবস্থান থেকে নিজ নিজ এলাকার কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর। সেই প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিটি এলাকার নেতা কর্মীদের কার্যক্রম অত্যন্ত প্রশংসিত।

অবশ্য ছাত্র লীগ সবসময়ই জাতির ক্রান্তি লগ্নে জাতির পাশে ছিল। আজও তার ব্যাপ্তয় ঘটেনি। করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন-কাফন, জানাজা – গোরখোদা, বা শতকারের ব্যবস্থা করা।

দরিদ্র,অসহায় বা অনাহারে থাকা মানুষ গুলোকে খাদ্য সামগ্রী , ঔষধ পত্র ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া, সকল কিছুই দেশ রত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে পালন করে আসছ।

আপনারা দুই চার জন নেতা – নেত্রীদের (fbতে বা বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত ছবি যা বলে) অপকর্মের দায় তো আপনাদেরকেই বহন করতে হবে।

আপনারা তো ইচ্ছা করলেই এই মহামারীতে (করোনা) লকডাউনে থাকা স্ব স্ব এলাকার মহিলাদের বা স্ব স্ব সংগঠনের মহিলাদের খোঁজ খবর নিয়ে খাবার দাবার বা প্রয়োজনীয় দ্রব্য পৌছে দিতে পারতেন, বয়স্ক নারী বা শিশুর তথা দুঃস্থদের পাশে দাড়িয়ে তাদের সাহায্য করতে পারতেন, লকডাউনের কারনে যারা আজ বিপদে আছে তাঁদের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে পারতেন।

সেটা না করে জাতির কাছে নিজেরাতো হাসির পাত্র হয়েছেন, সাথে আমাদেরকেও করেছেন প্রশ্নবিদ্ধ। এইসব কর্ম কান্ড দেখে আমরা স্তম্ভিত। আমরা হয়েছি বাক রুদ্ধ।

মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনার সূক্ষ্ম দূরদর্শি কার্যক্রম যখন বিশ্ব জুড়ে প্রশংসিত, আপনাদে মত দুই একজনের অপকর্মের কারনে তা কিন্তু আমরা ম্লান করে দিতে পারি না।।

জয় বাংলা. জয় বঙ্গবন্ধু ।

লেখক : প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ ।

শেয়ার করুন